কুষ্টিয়া জেলা ছাএলীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক মামুন ৪২ পিচ ইয়াবাসহ আটক

স্টাফ রিপোর্টার আরাফাত হোসেন

কুষ্টিয়া জেলা ছাএলীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক আব্দুল্লা আল মামুন ৪২ পিচ ইয়াবাসহ কুষ্টিয়া জেলা মাদক নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের পরিদর্শক বেলাল হোসেন তাকে আটক করেন।মামুন, কুষ্টিয়ায় চৌড়হাসের ১৯ নং ওয়ার্ডের আব্দুল খালেক এর ছেলে।কুষ্টিয়া সদর থানাধীন চৌড়হাস বাসস্ট্যান্ড মোড়স্থ হোটেল নূর প্যালেস (আবাসিক) এর দক্ষিণ পার্শ্বে দন্ডায়মান অবস্থায় মামুনের দেহ তল্লাশী করে তার পরিহিত জিন্স প্যান্টের সামনে ডান পকেট হতে একটি ডারবী (DERBY) নামীয় সিগারেটের প্যাকেটের ভিতর পলিথিন দ্বারা মোড়ানো এ্যামফিটামিনযুক্ত ইয়াবা নামীয় ট্যাবলেট ৪০ (চল্লিশ) পিস, সর্বমোট ওজন- ০৪ (চার) গ্রাম, মূল্য- ১২,০০০/- (বারো হাজার টাকা) পাওয়া যায়।

এজাহার সূত্রে জানা যায়,মোঃ বেলাল হোসেন, পরিদর্শক, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর জেলা কার্যালয়, ‘ক’ সার্কেল কুষ্টিয়া এই – মর্মে কুষ্টিয়া মডেল থানায় এজাহার দায়ের করি যে, গোপন সংবাদের মাধ্যমে জানতে পারি যে, কুষ্টিয়া সদর থানাধীন চৌড়হাস বাসস্ট্যান্ড মোড়স্থ হোটেল নূর প্যালেস (আবাসিক) এর আশপাশে জনৈক ব্যক্তি মোঃ আব্দুল্লা আল মামুন মাদকদ্রব্য বিক্রয়ের উদ্দেশ্যে অবস্থান করছে। উক্ত সংবাদ যাচাই পূর্বক অন্য ০৮/০১/২০১০ ইং তারিখ কার্যালয়ের উপ-পরিদর্শক জনাব শেখ আবুল কাশেম, সহকারী উপ-পরিদর্শক মোঃ সোহরাব হোসেন, মোঃ হোসেন আলী, সর্বসিপাই মোঃ মামুনুর রহমান, আব্বাস আলী এবং মোঃ রাশিদুল ইসলাম এনের সমন্বয়ে একটি রেইজিং পার্টি গঠন করে সরকারি গাড়ীযোগে কুষ্টিয়া সদর থানাধীন চৌড়হাস বাসস্ট্যান্ড মোড়স্থ হোটেল-নূর প্যালেস (আবাসিক) এর দক্ষিণ পার্শ্বে দন্ডায়মান অবস্থায় আসামী মোঃ আব্দুল্লা আল মামুন (৪২) কে সংবাদদাতার ইঙ্গিত মোতাবেক সময়ঃ ১৬.০০ ঘটিকায় ঘেরাও পূর্বক আটক করি। ঘটনাস্থলে উপস্থিত সাক্ষী ১। মোঃ দেলোয়ার হোসেন (৬০) (হোটেল নূর এর মালিক), পিতা- মৃত আমজাদ হোসেন, সাং- ৩১নং পলান বক্স রোড, মোবাইল- ০১৭৬৩৩৩০৫৪৬, ২। নয়ন অধিকারী (৩১), পিতা- মহেন্দ্র অধিকারী, সাং- কুমারপাড়া, মোবাইল- ০১৭৪৭৬২৫২৭, উভয় থানা ও জেলা- কুষ্টিয়া এদের সম্মুখে মেয়ারকৃত আসামীর দেহ বিধি মোতাবেক তল্লাশী করে তার পরিহিত জিন্স প্যান্টের সামনে ডান পকেট হতে একটি (DERBY) নামীয় সিগারেটের প্যাকেটের ভিতর পলিথিন দ্বারা মোড়ানো এ্যামফিটামিনযুক্ত ইয়াবা নামীয় ট্যাবলেট ৪০ (চল্লিশ) পিস উদ্ধার করেন।সর্বমোট ওজন- (চার) গ্রাম সময়ঃ ১৬.১০ উদ্ধার ও জব্দ করেন। ঘটনাস্থল হতে আসামীকে হাতেনাতে গ্রেফতার করেন। ঘটনাস্থলে দাঁড়িয়ে ক্লিপবোর্ডের উপরে একটি জন্ম তালিকা ও লেবেল প্রস্তুত করে উহাতে সাক্ষীদের স্বাক্ষর গ্রহণ করি এবং আমি নিজেও স্বাক্ষর করি। উদ্ধারকৃত আলামত এ্যামফিটামিনযুক্ত ইয়াবা ট্যাবলেট হতে ০১ (এক) পিচ রাসায়নিক পরীক্ষার জন্য নমুনা হিসাবে আলানা করি। অবশিষ্ট আলামত ও নমুনা পৃথক পৃথক ভাবে সিলগালা করে নিজ হেফাজতে গ্রহণ করি। অতঃপর আলামত, গ্রেফতারকৃত আসামী ও রেইডিং পার্টির সকল সদস্য সহ ঘটনাস্থল ত্যাগ করি।আব্দুল্লা আল মামুন (৪২) নিজ দেহে অবৈধ মাদকদ্ৰনা এ্যামফিটামিনযুক্ত ইয়াবা নামীয় ট্যাবলেট বিক্রয়ের উদ্দেশ্যে সংরক্ষণ করার অপরাধে মাদকদ্রব্য নিয়ন ২০১৮ সনের ৩৬(১) সারণীর ক্রমিক নং- ১০(ক) ধারায় শান্তিযোগ্য অপরাধ করায় আপনার থানায় তার বিরুদ্ধে একটি নিয়মিত মামলা রুজু করার জন্য অনুরোধ করেন।

মামুন এর আগেও ইয়াবাসহ পুলিশের হাতে আটক হয়। পরবর্তীতে জামিন বের হয়।কিন্তুু তার সেই মাদক কারবার এখনো বন্ধ হয়নি।

You May Also Like

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *